শিল্পোন্নয়নে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ মহান ‘স্বাধীনতা স্মারক সম্মাননা পদক-২০২৪ পেলেন এশিয়ান গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ট্রেজারার মোহাম্মদ আবদুস সালাম।

মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউটে বিশিষ্ট শিল্পপতি আবদুস সালামের হাতে পদক তুলে দেন চসিক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম চৌধুরী।এছাড়া বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখায় চট্টগ্রামের আরও ৯ জনকে চসিক স্বাধীনতা স্মারক সম্মাননা পদক দেওয়া হয়েছে।

মোহাম্মদ আবদুস সালাম আমেরিকান ইউনিভার্সিটি অফ লুইজিয়ানায় গ্রাজুয়েশন শেষ করে ১৯৮৫ সালে বাবা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আবু তাহের সওদাগরের ব্যবসায় যোগ দেন। ১৯৯২ সালে ক্ষুদ্র কারখানা তৈরি করে তিনি ব্যবসা শুরু করেছিলেন। ব্যবসাটি আজ দেশসেরা রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। এই শিল্পপতি প্রতিষ্ঠিত ২১টিরও বেশি কারখানায় বর্তমানে কাজ করছেন ৩৫ হাজার কর্মী। বর্তমানে আবদুস সালাম দায়িত্বপালন করছেন বিজিএমইএ ফোরামের সভাপতি, চট্টগ্রাম হার্ট ফাউন্ডেশনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, সাউদার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অফ ফ্যাশন এন্ড টেকনোলজি (সিবিইউএফটি)’র ভাইস চেয়ারম্যান (ট্রাস্টি বোর্ড) হিসেবে।
অন্যদিকে, তিনি বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি, ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ও ট্রাস্টি বোর্ড মেম্বার, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক, চিটাগং চেম্বার অফ কমার্সের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও চিটাগং ক্লাবের প্রেসিডেন্ট হিসেবে সুনামের সঙ্গে দায়িত্বপালন করেছেন।
চসিক স্বাধীনতা পদক পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় আবদুস সালাম বলেন, এই পুরস্কারের জন্য চসিক এবং চসিক মেয়রের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। কারণ আমরা যারা কাজ করছি-পরিশ্রম করছি তারা আমাদের কাজের মূল্যায়ন দিয়েছেন। আমার জন্য আজ অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিন। এই জন্য যে আজ থেকে ১০ বছর আগে আমার পিতা মরহুম আলহাজ আবু তাহের সওদাগরকেও সিটি করপোরেশন একুশে সম্মাননা দিয়েছিলেন।
পুরস্কার দায়িত্ব বাড়িয়ে দেয়। আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে আরও ভালোকরে কাজ করা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ ভিশন দেখাচ্ছেন তা বাস্তবায়নে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।