বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কর্মসূচির অংশ হিসেবে ১৮ ফেব্রুয়ারি শনিবার বিকাল ৩টায় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ নেতা দেবাশীষ পাল দেবুর উদ্যোগে চট্টগ্রাম বন্দর পোর্ট কলোনি নতুন মার্কেট চত্বর থেকে সারাদেশে জামায়েত – বিএনপি’র নৈরাজ্য, অগ্নিসংযোগ, পুলিশের উপর হামলা জনসাধারণের জানমালের ক্ষতিসাধন ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।


যুবলীগ নেতা ইমতিয়াজ বাবলার সভাপতিত্বে এবং যুব নেতা ফরহাদ আবদুল্লা ও মিজানের যৌথ সঞ্চালনায় এসময় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা খ,ম এয়াকুব, নগর যুবলীগ নেতা জাকের আহমেদ খোকন, সেকান্দর আজম, নায়েবুল ইসলাম ফটিক, মোঃ আনিফুর রহমান লিটু, সুফিউর রহমান টিপু, নুরনবী পারভেজ,এফ এ চৌধুরী বাদল, মোঃলোকমান, জাহিদ হোসেন খোকন, মোঃ ইসমাঈল, দিদারুল আলম, সালাউদ্দিন, সোহেল রানা, সাজ্জাদ আলী জুয়েল, কাজী আরিফ, সরওয়ার হোসেন, ফারুক হোসেন সুমন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, যুবায়ের হোসেন অভি, এমরান হোসেন, মোঃ কায়সার, অর্জুন চন্দ্র দাশ, মোঃ কাসেম, ইসমাইল হুরন নুরুল আফছার, রমজান আলী, আবু নাছের জুয়েল, মাহমুদুর রহমান বাপ্পি, হানিফ, মমিনুল হক মাসুম, আলাউদ্দিন সোহেল, শাকিব, রাসেল, মোঃ মনিরুল হক, হোসেন আহমদ কিরন, নুরুল আজিম বাবুল, তানভির বিন হাছান, ওয়াহিদুল ইসলাম রুবেল, মোস্তফা মামুন ভুঁইয়া, মোঃ আরাফাত, মোঃ শোয়েব, মোঃ নাজিম, অভি, সাইফুল হাসান সোহান, রোকনউদ্দিন কৌশিক রায়, রেহমান রাব্বি, জয় দাশ, মোঃ মাসুম, সুলতান ফাহিম আকবর জুয়েল, আবিদ হাছান, আরমান মোঃ সৈয়দ হোসেন, আতাউল গনি, শিহাব উদ্দিন, আকবর, বাবুল হোসেন, মোঃ কাবির, রুবেল, কামাল, এনামুল হক, সাকিব, বাবুল, আহাদ, রনি, দিদার,রিপন, নুর উদ্দিন রাসেল, শাহাবুদ্দিন সৌরভ, শুভ,বাবু, আমির, মোঃ সোহেল, হারুন অর রশিদ, মেহেদী হাসান, সবুজ, রাজা শাহ, আল আমিন, রায়হান, সজিব কান্তি দাস, রেদোয়ান রহমান, এম এ মান্নান সিরাজ প্রমুখ।

বিক্ষোভ মিছিলে দেবাশীষ পাল দেবু বলেন, আজকের এই সমাবেশে মাধ্যমে আমরা বাংলার যুবসমাজ ও বাংলার মানুষের কাছে বলতে চাই, বিএনপি-জামাত একটি জঙ্গি ও সন্ত্রাসী সংগঠন। তারা জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের পৃষ্ঠপোষক। বাংলা ভাই, আব্দুর রহমানের মত জঙ্গি সৃষ্টিকারী, ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলাকারী, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাসহ নানা অপকর্মে দেশকে জঙ্গি রাষ্ট্রে পরিণতকরেছিলবিএনপি-জামাত। সেই বিএনপি-জামাত আজকে নতুন করে বাংলাদেশকে আবারো বিশ্বের বুকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে জঙ্গি হামলার চক্রান্ত করছে। সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করে উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা বিনির্মাণে বাধাগ্রস্ত করছে। তিনি আরও বলেন-বিএনপি-জামাতের নেতারা বক্তব্য দেন রক্ত যত লাগে দেব, সরকারের পতন করে ছাড়বো। আমি আজকের এই সমাবেশ থেকে বলতে চাই, বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে বিএনপি-জামাতের রক্ত দেওয়ার কোন ইতিহাস নাই। তাদের আছে শুধু দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের ইতিহাস।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।